শিরোনাম :
মীরসরাইয়ে ট্রাক সহ চোরাই গরু ও ২ চোর আটক জেল থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকসহ জনপ্রতিনিধিকে প্রাণনাশের হুমকি! রাতের মধ্যে গ্রেপ্তারকৃত নাবিকদের মুক্তি না দিলে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট : শ্রমিক নেতা বাহারুল ইসলাম লক্ষ্মীপুরে শিয়ালের মাংস বিক্রির দায়ে একজনের কারাদন্ড রামগঞ্জে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৩ কেজি গাঁজাসহ মাদক কারবারি গ্রেপ্তার মোংলা ঘসিয়াখালী চ্যানেলে জাহাজ দুর্ঘটনায় একজন নিহত ওসি প্রদীপের স্ত্রী চুমকি শ্রীঘরে লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত রাঙ্গুনিয়ায় বেতাগী ইউনিয়ন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত ৩ লাখ ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ ১০ ব্যক্তিকে আটক করেছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী

মোরশেদ বলী হত্যা মামলার আরো ৪ আসামিকে আটক করেছে র‌্যাব-১৫

  • গত ১৫ এপ্রিল ৫ আসামি গ্রেফতার করে র‌্যাব-৭

  • পুলিশের হাতে আটক ৩

  • মোর্শেদ আলী হত্যা মামলায় মোট গ্রেফতার ১২

জাহাঙ্গীর শামস: কক্সবাজার সদরের পিএমখালী চেরাংঘাটা বাজারে চাঞ্চল্যকর মোরশেদ আলী প্রকাশ মোরশেদ বলী হত্যা মামলার আরো ৪ আসামিকে আটক করেছে র‌্যাব-১৫। ৮মে সকাল ১০ টায় র‌্যাব-১৫ এর উপ-অধিনায়ক মনজুর মেহেদী ইসলাম তাদের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রেস ব্রিফিং এ তথ্য জানান।

গত ১৫ এপ্রিল আরো ৫ আসামি গ্রেফতার করে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম। এ পর্যন্ত মোর্শেদ আলী হত্যা মামলার ৯ জন আসামি আটক করা হয়েছে। পুলিশের হাতে ঘটনার পরের দিন আটক হয় ৩ জন। মোট ২৬ জনের মধ্যে ১২ জন আসামি আটক হয়েছে।

র‌্যাবের হাতে আটককৃত সরাসরি হত্যাকান্ডে জড়িত ৩ ভাই মাছুয়াখালী নছরত আলী পাড়ার মৃত শফি আলমের পুত্র মতিউল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম, আজহারুল ইসলাম এবং বাংলাবাজার এলাকার মৃত ছৈয়দ আহমদের পুত্র জয়নাল আবেদীন হাজারী। আটক ৪ জনই সরাসরি মুরশেদ হত্যায় জড়িত বলে র‌্যাব জানায়। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত আছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান র‌্যাব ১৫ এর উপ অধিনায়ক মনজুর মেহেদী ইসলাম। মুলহোতা মালেক, আলালকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান।

এর আগে ১৫ এপ্রিল দুপুর ১২ টায় চট্টগ্রামের র‌্যাব ৭ সাংবাদিক সম্মেলনে ৫ জন আটকের খবর জানায়। তারা হলেন বিএনপি নেতা মাহমুদুল হক মেম্বার তার ২ ভাই নুরুল হক, মো. আলি প্রকাশ মোহাম্মদ, মোহাম্মদুল হকের ২ পুত্র মোঃ আবদুল্লাহ ও মোঃ আজিজ।

কক্সবাজার সদরের পিএমখালীতে পানি সেচ প্রকল্প দীর্ঘদিন ইজারা নিয়ে চালিয়ে আসছিল মোরশেদের পরিবার। এটি ভাগিয়ে নিতে নানা অপকৌশল, ছলচাতুরি করছিল একই এলাকার মাহমুদুল হক, জয়নাল, কলিম উল্লাহসহ তাদের গোষ্ঠীর লোকজন। এক পর্যায়ে জোর করে তারা দখলে নেয়। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বিবাদ তুঙ্গে পৌঁছে। অবশেষে পানি সেচ প্রকল্প বিবাদের নির্মম ভাবে খুন হল মোর্শেদ আলী।

র‍্যার-১৫ এর হাতে গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে প্রতিবাদী যুবক মোর্শেদকে নির্মমভাবে হত্যার লোমহর্ষক ঘটনার বিবরণ দিলেন খুনের ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী এবং সরাসরি জড়িত ৪ আসামি।

খুনিদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব-১৫ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, একটি সেচ প্রকল্প নিয়ে বিরোধের জের ধরে মোর্শেদকে ধমন করতে গত ৭ এপ্রিল চেরাংঘাট বাজারে দিদারের সিমেন্টের দোকানে এ ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী মাহমুদুল হক মেম্বার, তার ভাই মোহাম্মদ আলী এবং মেম্বারের ৩ ছেলেসহ সিদ্ধান্ত নেয় এবং সেদিনই ঘটনা সংগঠিত করা হবে।

(Visited 36 times, 1 visits today)