শিরোনাম :
বিজিএমই সহ-সভাপতি রাকিবুল আলম চৌধুরী নারায়ণহাট মাদ্রাসার সভাপতি নির্বাচিত সিলেট সুনামগঞ্জ বানভাসীদের মাঝে ফেনী জেলা ‘নিজের বলার মত গল্প ফাউন্ডেশন’ এর ত্রাণ বিতরণ স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে চবি কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত পদ্মা সেতু উদ্বোধন || প্রধানমন্ত্রীকে চট্টগ্রাম ট্রিবিউন পরিবারের অভিনন্দন মানবতার নায়ক আবদুস সামাদ স্যার, সবার জন্য অনুসরনীয় রামগঞ্জে খালের উপর থাকা নির্মাণাধীন দুইটি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছে স্বামী-স্ত্রী মাদক কারবারী, বিশেষ অভিযানে ৫মাদক কারবারী লোহাগাড়ার শ্রীঘরে, ইয়াবা জব্দ বান্দরবানে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন আজ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী যান্ত্রিক এবং মানবিক ত্রুটি দূর করতে পারলে ইভিএম গ্রহণযোগ্য হবে

হালদায় মা মাছ ডিম ছেড়েছে

২৫ হাজার ৫৩৬ কেজি ডিম সংগ্রহ

মুহাম্মদ মুহিউদ্দীন, চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধি: এশিয়ার মহাদেশের একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে মা মাছ ডিম ছেড়েছে। ২১ মে দিবাগত রাতে মা মাছ নমুনা ডিম ছাড়ে। ডিম সংগ্রহকরীরা ৭ মে থেকে ভারি বর্ষণের অপেক্ষায় থাকলেও শেষ পর্যন্ত মা মাছ ডিম ছাড়েনি। প্রতিবছর এপ্রিল- মে মাসে অমাবস্যা, পূর্নিমার জোয়াড়ে ডিম ছাড়ে মা মাছ। ১৯ মে থেকে ভারি বর্ষণে আশায় বুক বাঁধে হালদা পাড়ের ডিম সংগ্রহকারীরা।

২২মে সকাল ৭টার দিকে মা মাছ দলে দলে নদীর তলদেশ থেকে উঠে এসে ডিম ছাড়া শুরু করে। হালদা নদী পরিদর্শন ও ডিম সংগ্রহকারীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা উৎসব মূখর পরিবেশে নেট জাল পেতে পর্যাপ্ত ডিম সংগ্রহ করেছেন।

বৃহস্পতিবার(২১/০৫/২০) রাত থেকে শত শত নৌকা নিয়ে ডিম সংগ্রকারীরা নদীতে অবস্থান নেয়। রাতে পর্যাপ্ত ডিম সংগ্রহ করতে ব্যর্থ হলেও শুক্রবার সকাল থেকে পর্যাপ্ত ডিম জালে ধরা পরে। আজিমের ঘাট এলাকার ডিম সংগ্রহকারী রোসাগীর জানান, গত কয়েক বছরের তুলনায় আশাব্যঞ্জক ডিম পেয়েছেন তিনি।

একই এলাকার শাহাজান, মামুন, পরান জলদাশ, সাধন জলদাশ, পাভেল জলদাশ, প্রফুল্ল, সুবল, মুন্সী মিয়া, জাহাঙ্গীর, সেলিম ও বেলাল মিয়া আশানুরূপ ডিম সংগ্রহের কথা জানান। রামদাশ হাট এলাকার চন্দন দাশ জানান, তার ৭টি নৌকা ডিম সংগ্রহ কাজে নিয়োজিত ছিল। ৭টি নৌকা দিয়ে ১৪/১৫ বালতি ডিম সংগ্রহ করেছেন। অংকুরিঘোনা এলাকার মিলন বড়ুয়া জানান, ৪টি নৌকা নিয়ে ১৫/১৬ বালতি ডিম সংগ্রহ করেছেন। গড়ে প্রতিটি নৌকা ৩/৪ বালতি পর্যন্ত ডিম সংগ্রহের খবর পাওয়া গেছে।

এছাড়া পশ্চিম গুজরা, মাতুয়া, নাপিতের ঘাটা, গড়দুয়ারা, উত্তর মাদার্শা, খলিফারঘোনা, বাড়িঘোনা, উরকিরচর এলকার বিভিন্ন স্পর্টে ডিম সংগ্রহের মহোৎসব চলে।

হালদায় মা মাছের ডিম সংগ্রহের দৃশ্য সরেজমিনে পরিদর্শনে আসা রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জোনায়েদ কবির সোহাগ জানান, হালদা নদী পুরো বছর নজরদারীতে ছিল উপজেলা প্রশাসনের। যার কারণে অন্যান্য বছরের তুলনায় মা মাছ বেশী ডিম ছেড়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমি ডিম সংগ্রহকারীদের সাথে কথা বলেছি। তারা প্রতি নৌকা ৫/৬ বালতি করে ডিম সংগ্রহ করেছে। তারা খুব খুশি হয়ে বলেছে অনেক বছর পর হালদার মা মাছ আশার প্রদীপ দেখিয়েছে।

তিনি বলেন, এখনো (বেলা২টা) ডিম সংগ্রহ চলছে। কি পরিমান জেলেরা ডিম সংগ্রহ করেছে কালকের মধ্যে জানা যাবে। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফারহানা লাভলী জানান, ডিম সংগ্রহকারীরা আত্বতৃপ্তিতে ডিম সংগ্রহ করেছেন। সমৃদ্ধি পথে হালদা নদী। দূষণ বন্ধ হয়েছে। সচ্ছ পানিতে নিরাপদে মা মাছ ডিম দিয়েছে। এখন দরকার মা মাছকে সুরক্ষা দেয়া। সেলক্ষ্যে নৌ পুলিশ পাহাড়ায় রয়েছে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা পীযূষ প্রভা কর জানান, মা মাছ ডিম ছাড়ার পর ডিম সংগ্রহকারী লোকজন নৌকা নিয়ে নদীতে নামে। তারা আগে থেকে প্রস্তুত ছিল। এবার হালকা বৃষ্টি ও ঘুর্ণিঝরের প্রভাবে মা মাছ ডিম ছেড়েছে বলে তিনি জানান। সরকারি সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের ১৫ মে.ট ডিম ছাড়ে হালদায় মা মাছ। আহরণ করা প্রায় ১০ হাজার কেজি ডিম থেকে ২০০ কেজির বেশি রেণু উৎপাদিত হয়েছিল। তবে এবার ২০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ ডিম আহরণের আশা করছেন স্থানীয় ডিম সংগ্রহকারী, প্রশাসন ও হালদা গবেষণা সেন্টার।

সিটি১৩-২২/এমডিআএম/মে২০

(Visited 59 times, 1 visits today)